Spyware

জর্জ অরওয়েলের দুঃস্বপ্ন সত্যি হল?

তথ্যপ্রযুক্তি সংক্রান্ত যাবতীয় আধুনিকতার যেরকম ভয়াবহ প্রচার ভারতে আজকের প্রজন্ম ইতিমধ্যেই দেখেছে বা দেখছে তার কারন কোন “ডিজিটাল ইন্ডিয়া” নয়, বিশ্ববাংলা তো নয়ই! এর পিছনের কারন বুঝতে হলে আমাদের ফিন্যান্স পুঁজি, পুঁজিবাদী আধুনিক অর্থনীতি এবং আজকের পৃথিবীতে সাম্রাজ্যবাদের সমবেত মিথস্ক্রিয়া বুঝতে হবে। সেই উদ্দেশ্যেই এই নিবন্ধের সুত্রপাত। স্মার্টফোনে স্পাইওয়্যার পাঠিয়ে নাগরিকদের চলাফেরায় আড়ি পাতছে দেশের সরকার – এ আর জেমস বন্ডের আষাঢ়ে গপ্পো নয়! জর্জ অরয়েল বেঁচে থাকলে আরেকবার 1984 লিখতে বসতেন কিনা জানার সুযোগ নেই, সোশ্যালিজম আদৌ পেরেছিল কিনা কেউ জানেনা কিন্তু পুঁজিবাদ তার সেই কষ্টকল্পনাকে সত্যি প্রমান করেই ছাড়ল; এখন বলতেই হচ্ছে বিগ ব্রাদার ইজ ওয়াচিং আস!

PB Statement

পেগাসাস স্পাইওয়্যার ব্যাবহার করে ভারতীয়দের উপরে নজরদারি - পলিট ব্যুরোর বিবৃতি

ভারতীয় আইনে কারোর স্মার্টফোন হ্যাক করে সাইবার-স্পাই সফটওয়্যার দ্বারা কারোর ব্যক্তিগত তথ্য বের করা নিষিদ্ধ, এমনকি ভারত সরকারও সেই কাজ করতে পারে না। তবে ভারত সরকার কোন আইনের বলে এহেন নজরদারি চালাচ্ছে? সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশানুযায়ী ব্যক্তিগত গোপনীয়তা প্রত্যেকের মৌলিক অধিকার, কিন্তু কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ব্যক্তিগত গোপনীয়তা সংক্রান্ত আইনকে কার্যকরী করতে গিয়ে সত্যের অপলাপ ঘটাচ্ছে।

মানুষের জীবনের বিনিময়ে মুনাফার চক্রান্ত চলছে - এর জবাব চাই

মোদী সরকার এই হাহাকারের দায় কখনোই এড়িয়ে যেতে পারে না কারন যে “খোলাবাজারের” উদারবাদী নীতিতে আমাদের দেশে টিকার উৎপাদন সম্পাদিত হয়েছে তাতে এমনটাই ছিল অবশ্যম্ভাবী। জনগণের টাকায় টিকার গবেষণা চলেছে অথচ যখন প্রয়োজন এলো সেই গবেষণালব্ধ টিকা হয়ে গেল বেসরকারি মালিকানাধীন পণ্য! আর কে না জানে পণ্য উৎপাদন এবং তার মূল্য নির্ধারণের আগাগোড়া সবটাই অমানবিক!

কোভিড-১৯ মহামারীতেও ঘৃণ্য রাজনীতি করতে ছাড়ছেননা মোদী সরকার - মৃদুল দে

ডেথ সার্টিফিকেট মৃত্যুর কারণ বলে দিচ্ছে ফুসফুস এবং হূদযন্ত্রের সমস্যা । মৃতদের পরিবারগুলিকে দরজায় দরজায় ছুটে বেড়াতে হচ্ছে । করোণায়

PB Statement

বিনামূল্যে সর্বজনীন গণটিকাকরন নীতি গ্রহণ করতে হবেঃ পলিট ব্যুরোর বিবৃতি

সিপিআই(এম) দাবী জানাচ্ছে অবিলম্বে কেন্দ্রীয় সরকার বেসরকারি ক্ষেত্রের জন্য ২৫ শতাংশ ভ্যাকসিনের সংরক্ষন নীতি বর্জন করুক। দেশের অভ্যন্তরে উৎপাদিত এবং বিদেশ থেকে আমদানি করা সমস্ত প্রতিষেধক কেন্দ্রীয় সরকার নিজেদের নিয়ন্ত্রনে নিক এবং রাজ্যগুলির সাথে যথাযথ আলোচনা পূর্বক তাদের মধ্যে সেই ভ্যাকসিনের বণ্টন করা হোক।

Sitaram Yechury on Modi

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তুলে সাধারণতন্ত্র এবং ভারতের মানুষকে রক্ষা করতে হবে

বিগত দু’ বছর ধরে এ দেশের মানুষ এবং আমাদের সাংবিধানিক প্রজাতন্ত্র এক ভয়াবহ সময় অতিবাহিত করছে। আজ সময় আগত যে সকল মানুষ ভারতের সাংবিধানিক প্রজাতন্ত্র, তার মানুষের জীবন, জীবিকা, জীবনযাত্রার মান রক্ষা করতে ইচ্ছুক, মানুষের অলঙ্ঘনীয় সাংবিধানিক সমানাধিকার এবং অন্যান্য অধিকারসমূহকে, ব্যাক্তিস্বাধীনতা কে রক্ষা করতে ইচ্ছুক, যারা সাংবিধানিক সকল মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, তাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে প্রতিরোধ গ’ড়ে তুলে ভারতের সাধারণতন্ত্র এবং ভারতীয় মানুষের উপর এই আক্রমণ কে প্রতিহত করতে হবে।

The Lockdown: Pattnayek

লকডাউনঃ অর্থনীতির এক বিপজ্জনক পরিণতি

কিন্তু মোদি সরকার যেমন ভীতু তেমনি অপদার্থ। এই চূড়ান্ত অর্থনৈতিক সঙ্কটকালেও সরকার ব্যয়সঙ্কোচনের নীতি আঁকড়ে চলতে চায় বলেই তার মত, এই নীতি দেশকে এক বিপজ্জনক পরিণতির দিকে নিয়ে যাবে।

34 years Of LeftFront 1

মহামারীর পরিস্থিতিতে কেন্দ্রীয় সরকারকে যথাযথ দায়িত্ব পালন করতে আহ্বান বামদলগুলির

একটা গোটা বছর কেন্দ্রীয় সরকার জরুরী পরিকাঠামো না গড়ে তুলে নষ্ট করেছে, আমাদের পক্ষ থেকে জানানো কোনো মতামত ই তারা গ্রহণ করেনি। এই সময়ে সরকার নিজেই এমন নানা কর্মসূচিতে সম্মতি দিয়েছে যাতে সংক্রমন অতি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে।

Bhakts In India

দিশেহারা জনতার প্রশ্নে ভক্তবৃন্দের "অথ রাম নাম"!

কেন্দ্রীয় সরকার কোভিশিল্ড টিকা কিনলে দাম ১৫০টাকা, রাজ্য সরকার কিনলে ৪০০টাকা আর বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে কিনতে হবে ৬০০টাকা দিয়ে। কোভ্যাক্সিন বেসরকারি হাসপাতালে ১২০০, রাজ্য সরকার কিনলে ৬০০ টাকা। কেন এই বৈষম্য? একদেশ, এক ভাষা, এক ধর্ম, এক নেতার পক্ষে সওয়াল করে কেন এক দেশ ৩ রকমের দাম? এটা আর একটা বড় ঘোটালা বিজেপি করছে, যখন দেশের মানুষ অসহায়ের মতো মৃত্যু মিছিলে দাঁড়িয়ে।