Prison-Notebooks

22

Jan 22

Antonio Gramsci: A Life To Remember

গ্রামশি বুঝেছিলেন তিনি বেরিয়ে যেতে পারলেও ইতালির সর্বহারা – মেহনতি জনগণের কোথাও যাওয়ার নেই, যতক্ষণ না তার বুঝবেন তাদের নিজেদের দেশে গ্রামশির থাকা নিরাপদ নয় তার আগে চলে যাওয়ার অর্থ হবে জনগণের মনে ভয়ের উদ্রেক হতে সাহায্য করা। প্রকৃত বিপ্লবী ছিলেন বলেই নিশ্চিত মৃত্যুর সামনে দাঁড়িয়েও আশাবাদী ছিলেন – সিনেমার নায়কের মতো অ্যাডভেঞ্চার কমিউনিস্ট বিপ্লবীকে মানায় না, সিনেমার নায়ক সর্বদা জিতলেও জনগণের সংগ্রামের নায়ককে কখনো ব্যার্থ হতে হয়। তাহলেও শেষ অবধি তিনি জনগণের স্বার্থকেই নিজের স্বার্থ বলে মনে করেন, এখানেই গ্রামশির সংগ্রাম নতুন ইতিহাস রচনা করে, এখানেই নিহিত থাকে গ্রামশির উত্তরাধিকার।
আরও পড়ুন

21

Jan 22

Last Days Of Lenin: A Memoir

বিপ্লবী লেনিন, মানুষ লেনিন মারা গেছেন, আমাদের কাজ লেনিনবাদকে বাঁচিয়ে রাখা - মার্কসবাদকে বাঁচিয়ে রাখতে লেনিনবাদকে রক্ষা করা আমাদের অন্যতম কর্তব্য।
আরও পড়ুন
Ranesh Dasgupta

15

Jan 22

Ranesh Dasgupta: A Memoir

শিল্পী জীবনের আকর্ষণ- বিকর্ষণের দ্বন্দ্বের ভিতর দিয়ে যে নির্মাণ, তাকে একালের মূল সমস্যাকে সামনে আনার ক্ষেত্রে একটা বড় সহায়ক শক্তি হিসেবে মনে করতেন রণেশ দাশগুপ্ত। সেই আকর্ষণ- বিকর্ষণের মাধ্যমে যে স্বাতন্ত্রবোধ তৈরি হয়, সেটাই সৃষ্টিকে স্বতঃস্ফূর্ত একটা গতিপথে খুব সহজে প্রবাহিত করে- এই ভাবনা থেকেই তিনি গোটা জীবনের সমস্ত চিন্তাকে, ভাবনাকে এগিয়ে নিয়ে গিয়েছিলেন।সেই ভাবনার প্রসারণ স্বাধীন, সার্বভৌম বাংলাদেশে খুব সহজে ঘটবে বলে যে বিশ্বাস তাঁর ছিল,সেই বিশ্বাসে ভর করেই স্বাধীন বাংলাদেশে পাখির মতো তিনি উড়ে বেড়াতেন। কিন্তু '৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট বঙ্গবন্ধু সপরিবারে শাহাদাত বরণের পর রণেশ দাশগুপ্ত বুঝে গিয়েছিলেন পাকিস্থানের দোসর খুনি মেজরচক্র বা তাদের শাগরেদরা যতোদিন সক্রিয় থাকবে, রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করে থাকবে ততোদিন শিল্পীর স্বাধীনতা বলে কিছু থাকবে না। তাই গভীর যন্ত্রণা নিয়ে তিনি ভারতে চলে আসেন।জীবিতাবস্থায় আর বাংলাদেশে ফিরে যান নি।
আরও পড়ুন
Surya Sen

12

Jan 22

Surya Sen: A Master’s Stroke

মৃত্যুদিবসে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে গিয়ে মনে রাখতে হবে তাঁর দেখানো পথের ব্যাপারটা শুধু রগের শিরায় খুন চাপিয়ে হাতের আঙ্গুল চিপে ট্রিগার চালানো নয়, একেবারেই নয়। সূর্য সেন সম্পর্কে অমন একটা সংকীর্ণ ধারণাই আমাদের চেতনায় গেঁথে দিতে চেয়েছে সাম্রাজ্যবাদ, তাতে লুঠেরা ব্যবস্থারই মুনাফা। সূর্য সেন আসলে একটা প্রতীক, শাসকের নিশ্ছিদ্র বন্দোবস্ত সম্পর্কে যাবতীয় অহংকার চুরমার করে দেবার প্রতীক, নিরীহ অসহায়রা একজোট হলে অতি বড় পরাক্রমী শাসকেরও হার নিশ্চিত এই ঐতিহাসিক শিক্ষার প্রতীক, সবশেষে শত্রুর অস্ত্রাগারই আমাদের অস্ত্রাগার এই উপলব্ধিরও প্রতীক। তাঁর প্রতিকৃতি বা মূর্তিতে নির্দিষ্ট দিনে মালাটুকু চাপিয়ে কর্তব্য সমাধা করার নামে প্রতি বছর তাকে বারংবার খুন করা হচ্ছে কিনা সেকথা ভেবে দেখার সময় এসেছে।
আরও পড়ুন

8

Jan 22

Remembering Galileo: Some Issues on the Contradiction Between Science and Religion

আজকের প্রেক্ষাপটে এই ধারনার মধ্যেকার প্রত্যক্ষ দ্বন্দ্ব কিছুটা অস্পষ্ট হয়েছে, কারণ গোটা পৃথিবীই বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব বিকাশের সাক্ষী। কিন্তু তা সত্ত্বেও, বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এবং কিছু অতি দক্ষিণপন্থী-সাম্প্রদায়িক রাজনৈতিক শক্তি বিজ্ঞান ও ইতিমধ্যে প্রমানিত বৈজ্ঞানিক তথ্যসমুহকে অস্পষ্ট ধর্মীয় পরিভাষায় ব্যাখ্যা করে, এবং লব্ধজ্ঞানকে ভুল প্রমান করার চেষ্টা করে। আজকের ভারতে যা ঘটছে তা হলো আরএসএস হিন্দুত্বের পরিভাষায় আধুনিক বিজ্ঞানকে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করছে এবং হিন্দু ধর্মগ্রন্থগুলির সাথে আধুনিক বিজ্ঞানের সামঞ্জস্যতা ‘খুঁজে বার করার’ চেষ্টায় ক্রমশ গাজোয়ারি করে যাচ্ছে। এ হল এক বিপজ্জনক প্রবণতা যা প্রতিহত না করলে দেশের বিজ্ঞান ও বৈজ্ঞানিক মূল্যবোধ ধ্বংস হবে।
আরও পড়ুন

5

Jan 22

BAN Repealed From CPI: A Lookback

নিবর্তন মূলক আইনের বিরুদ্ধে সর্বত্র প্রতিবাদ হয়, বিধানসভায় তখন কমিউনিস্ট পার্টির দুজন প্রতিনিধি। জ্যোতি বসু এবং রতনলাল ব্রাক্ষণ। জ্যোতি বসু স্পষ্ট জানান এই আইন প্রবর্তনের মধ্যে দিয়ে সরকার কার্যত পুলিশি নির্যাতনকে আইনানুগ করে তুলতে চাইছে, সরকার মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নিতে চায় বলেই এই আইনের ব্যবহার করতে চাইছে। ৪৮সালে ওয়েস্ট বেঙ্গল সিকিউরিটি অর্ডিন্যান্স নিয়ে আসে রাজ্য সরকার। পুরানো আইনে "যথার্থ অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার" করতে হত, নতুন অর্ডিন্যান্স সেটুকু সুযোগও দিল না। কেন্দ্রীয় সরকার পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যকে 'উপদ্রুত এলাকা' হিসাবে চিহ্নিত করলে ডা: বিধান চন্দ্র রায় নতুন মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্বে এলেন।
আরও পড়ুন
Safdar Hashmi

2

Jan 22

Safdar Hashmi: A memoir

সফদার হাসমি – এই নামের সাথে শুধুই একপাল ঘরের খেয়ে বনের মোষ তাড়ানো ছেলে-মেয়েদের জড়ো করে রাস্তাঘাটে ঘুরে বেড়িয়ে নাটক গান করার ব্যাপারকে দেখলে চলে না। সফদার’কে শুধুমাত্র ঐটুকু বিষয় হিসাবে দেখতেই আমাদের অভ্যস্ত করতে চায় অনেকেই। সেই চাওয়ার পিছনে যথেষ্ট রাজনীতি ছিল, আছে। আমরা সফদার হাসমি’কে মনে রাখবো কেন? কিভাবে? এসবের উত্তর পেতে সফদারের জীবনপঞ্জি ছাড়াও এদেশে গণআন্দোলনের ইতিহাস, গণসংস্কৃতি চর্চার ইতিহাস এবং একইসাথে এদেশে বাম আন্দোলনের ইতিহাস পড়তে হবে, উপলব্ধি করতে হবে আমাদের সবাইকে। ঐ ইতিহাস এদেশের মানুষের লড়াই-সংগ্রামের ইতিহাস – আবার সারা পৃথিবীতে মানুষের অধিকারের স্বার্থে গড়ে ওঠা আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাসের সাথেও সফদার’দের লড়াই সংযুক্ত; ছিল, রয়েছে –থাকবে।
আরও পড়ুন

15

Dec 21

Varanasi: Floating Politics

করিডর তৈরির জন্যে যে উচ্ছেদ হয়েছে, তাতে বেশ কিছু দোকানের মালিক, যাঁরা ধর্ম পরিচয়ে মুসলমান, তাদের পুনর্বাসনের আদৌ কোনো ব্যবস্থা হয় নি। গত কয়েক বছর ধরে, এই করিডর নির্মাণকালে উচ্ছেদ হওয়া দোকানদারদের সামান্য হলেও কিছু আর্থিক সহায়তা উত্তরপ্রদেশ সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছিল। এই আর্থিক সহায়তা দেওয়ার ক্ষেত্রেও চরম সাম্প্রদায়িক বিভাজন করেছে উত্তরপ্রদেশের বিজেপি সরকার। যেসব দোকানদারেরা ধর্মীয় পরিচয়ে মুসলমান, তাদের মেলে নি কোনো রকমের আর্থিক সহায়তা। পুনর্বাসনের সময়েও তাঁরা প্রশাসনের কোনো রকম বিবেচনার ভিতরে আসে নি।
আরও পড়ুন

3

Dec 21

Remembering Shaheed Khudiram Bose

ছোট থেকেই ক্ষুদিরাম দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন তাঁর বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের কাছ থেকে। ১৯০২ সালে অরবিন্দ ঘোষ মেদিনীপুরে একাধিক সভা করেন মেদিনীপুরবাসীদের স্বাধীনতা আন্দোলনে উৎসাহিত করার জন্য। ক্ষুদিরাম এই সভাগুলোয় নিয়মিত উপস্থিত থাকতেন । মাত্র ১৬ বছর বয়সেই ক্ষুদিরাম বোমা বানানোয় পারদর্শী হয়ে ওঠেন ও একাধিক থানা ও ব্রিটিশ সরকারের আধিকারিকদের লক্ষ্য করে আক্রমণ শুরু করেন।
আরও পড়ুন
Titumir

19

Nov 21

Titumir: A Memoir To Martyr Mir Nisar Ali

১৮৩১ সালের ২৩ শে অক্টোবর থেকে নারকেলবেড়িয়াতে বাঁশের কেল্লায় তিতু এবং তাঁর সহযোদ্ধারা যে ঐতিহাসিক লড়াই শুরু করেছিলেন , সেই লড়াইয়ের একটি পরূযায়ের পরিসমাপ্তি ঘটে সেই বছরেরই ১৯ শে নভেম্বর তিতুর শহিদত্ব বরণের ভিতর দিয়ে।তিতুর আন্দোলন পিছিয়ে পড়া মানুষ, আর্থ- সামাজিক ভাবে পিছনের সারির মানুষদের ভিতর অধিকার সচেতনতার প্রশ্নে ঐতিহাসিক অবদান রেখে গেছে।সাধারণ মানুষদের ভিতরে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের কদর্যতা ঘিরে সচেতনতা এবং সেইসাথে ধর্মীয় সঙ্কীর্ণতার উর্ধে উঠে লড়াই করার প্রশ্নে তিতুমীর এক চিরস্মরণীয় ব্যক্তিত্ব।আজ গোটা ভারতজুড়ে হিন্দু সাম্প্রদায়িক , মৌলবাদি শক্তির ভয়াবহ দাপট প্রতিহত করতে, তিতুর সংগ্রামের নির্মোহ চর্চা বিশেষ জরুরি।
আরও পড়ুন

সাম্প্রতিক ঘটনা

শেয়ার করুন