Logo oF Communism

কৃষি আইন প্রত্যাহার করতে হবে: সিপিআই(এম) পলিট ব্যুরোর বিবৃতি

কিছু বিচ্ছিন্ন এবং অনভিপ্রেত ঘটনা এই লড়াইয়ের মূল লক্ষ্য থেকে কৃষকদের বিচ্যুত করতে পারবে না। আজ কৃষক সংগঠন গুলির তরফে প্যারেড চলাকালীন শাসক দলের ঘনিষ্ঠ, প্ররোচক এবং ঐক্য ভাঙতে পরিকল্পিত কুকর্মের সাথে জড়িতদের এই আন্দোলনের বাইরে করে দেওয়া হয়েছে। একই সাথে একথাও সত্যি যে ট্র্যাক্টর প্যারেডের জন্য পূর্ব নির্ধারিত রাস্তায় ব্যারিকেড দিয়ে পুলিশের তরফেও আন্দোলনকারীদের মেজাজ হারানোয় যথেষ্ট ইন্ধন দেওয়া হয়েছে। পুলিশের এহেন আচরন ক্ষমার অযোগ্য।এই সমস্যার সমাধানে অবিলম্বে সংসদের আসন্ন বাজেট অধিবেশনেই নয়া কৃষি আইন বাতিল করতে সিপিআই (এম) পলিট ব্যুরো আরো একবার কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছে।

সরকার দেশ পরিচালনায় ব্যর্থ - বর্তমান কৃষক আন্দোলন এই শিক্ষাই দেয় (পর্ব ১)

দেশের ভবিতব্য ঠিক করবেন দেশের জনসাধারণ, কোন আধিপত্যবাদী কর্তৃত্ব নয়। কোন নির্বাচনের ফলাফল ঠিক করতে পারে না এই দেশ কোন ক্ষমতার অনুসারি হয়ে চলবে, ক্ষমতাসীন দলের এই ধারণা ভুল যে তারা নির্বাচনে জয়লাভ করেছেন বলে এই দশ তাদের সম্পত্তিতে পরিণত হয়েছে। একেবারেই নয়, তাদের দেশ পরিচালনার দায়িত্ব দিয়েছেন ভারতের জনসাধারন। সেই কাজে যে তারা ব্যর্থ একথাই আজ ভারতের জনসাধারন এই ট্র্যাক্টর প্যারেডের মাধ্যমে বুঝিয়ে দিলেন।

কিষাণ প্যারেড সম্পর্কে সংযুক্ত কিষাণ মোর্চার বিবৃতি

সংযুক্ত কিষান মোর্চার প্রেস বিবৃতি ২৬ শে জানুয়ারি, ২০২১ দেশের সাধারণ তন্ত্র দিবসে কৃষকদের পক্ষ থেকে ট্রাক্টর সহ প্যারেডের আহ্বানে

নয়া কৃষি আইন বাতিল করতে হবে - এটাই সমাধান

সাধারণতন্ত্র দিবসে পার্টির সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরির আহ্বান আমরা ভারতের জনসাধারন রাজতন্ত্রের ধারনাকে ছুঁড়ে ফেলে একটি সাধারণতন্ত্র হিসাবে দেশকে গড়ে

দিল্লির রাজপথে সাধারণতন্ত্রের প্রকৃত উৎসব পালিত

কৃষকদের লড়াই ইতিহাস তৈরি করল আজ আজ ভারতে সাধারণতন্ত্র দিবস। নয়া কৃষি আইন বাতিলের দাবীতে দিল্লি সীমান্তে কৃষকদের আন্দোলন চলছে

দেশের মানুষের শৃঙ্খলমুক্তির লড়াই এবং সুভাষচন্দ্র বসু

প্রায় দুশো বছর পরাধীন ভারতে নানা ধরনের লড়াই হয়েছে। কিন্তু বিদেশের মাটিতে একটা অস্থায়ী স্বাধীন ভারত সরকার স্থাপন করে শত্রু ইংরেজ সরকারকে নোটিশ দিয়ে আন্তর্জাতিক আইন মোতাবেক সরাসরি যুদ্ধ ঘোষণা করার মতো ঘটনা আজাদ হিন্দ ফৌজ ও তার সর্বাধিনায়ক সুভাষচন্দ্র বসুর নেতৃত্বেই প্রথম সম্ভব হয়েছিল। আজাদ হিন্দ ফৌজ স্থায়ী হয়নি কিন্তু তাদের লড়াই, সংগ্রাম ও আত্মত্যাগ ভারতবর্ষের ইতিহাসে সুদূর প্রসারী ছাপ ফেলেছিল।