শিক্ষাব্যাবস্থায় কেন্দ্রীকরণ, সাম্প্রদায়িকীকরণ এবং বানিজ্যিকিকরণের বিরোধিতা করুন - সিপিআই(এম) পলিট ব্যুরোর দাবী

তারিখঃ ২৯ জুলাই, ২০২০ – বুধবার

ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)’র পলিট ব্যুরো নিম্নলিখিত বিবৃতি জারী করেছেঃ

ভারতের শিক্ষাব্যাবস্থায় কেন্দ্রীকরণ, সাম্প্রদায়িকীকরণ এবং বানিজ্যিকিকরণের বিরোধিতা করুন

মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রককে নতুন নাম দেওয়া এবং নতুন শিক্ষা নীতি চাপিয়ে দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত আজ কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে একতরফা ভাবে নেওয়া হয়েছে সিপিআই(এম)’র পলিট ব্যুরোর পক্ষ থেকে তার তীব্র প্রতিবাদ জানানো হচ্ছে।

শিক্ষা আমাদের সংবিধানের যৌথ তালিকার অন্তর্ভুক্ত বিষয়। নতুন শিক্ষা নীতি প্রনয়ন করার ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকার যেরকম একরোখা মনোভাব দেখিয়ে নানা রাজ্যের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিভিন্ন আপত্তিগুলিকে এড়িয়ে গেছে তা এককথায় সাংবিধানিক নীতির লঙ্ঘন।

এধরণের কোন নীতি প্রনয়ন সংসদে আলোচনার ভিত্তিতে করার প্রয়োজন ছিল। সেই ব্যাপারে সরকারের তরফে আশ্বাসও দেওয়া হয়েছিল। সংসদীয় ব্যাবস্থায় প্রস্তাবিত কোন খসড়া নীতির ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট সময় দেওয়া হয় যার মধ্যে সাংসদেরা সংশ্লিষ্ট প্রস্তাবের উপরে নিজেদের মতামত অথবা সংশোধনী জমা দেন। এই নীতি প্রনয়নের ক্ষেত্রে সংসদকে সরাসরি অগ্রাহ্য করা হয়েছে।

প্রস্তাবিত শিক্ষানীতির খসড়া জনসমক্ষে পেশ করা হয়েছিল যাতে সারা দেশের সংশ্লিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ যাদের মধ্যে ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকা এবং শিক্ষাবিদেরাই প্রধান, এই প্রস্তাবে নিজেদের মতামত, পরামর্শ যুক্ত করতে পারেন। এছাড়াও বহু মেধাবৃত্তিকারেরাও এই শিক্ষানীতি নিয়ে নিজেদের মতামত জানিয়েছিলেন। শিক্ষানীতির প্রনয়নের সময়ে সেইসব কোনকিছুকেই গ্রাহ্য করা হয় নি।

ভারতের শিক্ষাব্যাবস্থাকে ধ্বংস করে দিতে যেভাবে একতরফা সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তার উদ্দেশ্য শিক্ষাব্যবস্থার আরও বেশি কেন্দ্রীকরণ, আরও বেশি সাম্প্রদায়িকীকরণ এবং বানিজ্যিকিকরণ।

সিপিআই(এম)’র পলিট ব্যুরো কেন্দ্রের বিজেপি শাসিত সরকারের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা জানাচ্ছে। পলিট ব্যুরোর তরফে এই শিক্ষানীতির প্রনয়নের আগে সংসদে যথাযথ বিশদ আলোচনার দাবী করা হয়েছে।

Education Policy 2020

শেয়ার করুন

উত্তর দিন