Samyukta Kisan Morcha Press Bulletin

সংযুক্ত কিষান মোর্চার প্রেস বিজ্ঞপ্তি 

সংগ্রামের ৩৭৩ দিন, ৪ঠা ডিসেম্বর, ২০২১

সংযুক্ত কিষাণ মোর্চা আজকের সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ভারত সরকারের কাছ থেকে আনুষ্ঠানিক এবং সন্তোষজনক প্রতিক্রিয়া না পাওয়া পর্যন্ত কৃষকরা সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন। সারা দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলি সহ বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলিতে বিক্ষোভকারী অসংখ্য কৃষক এবং তাদের লড়াইতে পাশে থাকা সমর্থকদের বিরুদ্ধে দায়ের করা সমস্ত মামলা প্রত্যাহার না হওয়া অবধি এই লড়াই জারী থাকবে।

বকেয়া দাবিগুলির প্রসঙ্গে ভারত সরকারের সাথে আলোচনা এগিয়ে নিয়ে যেতে সংযুক্ত কিষান মোর্চা পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি কমিটি গঠন করেছে, এই পাঁচজন হলেন অশোক ধাওয়ালে, বলবীর সিংহ রাজেওয়াল, গুরনাম সিং চারুনি, শিব কুমার কাক্কাজি এবং যূধবির সিংহ।

আগামী ৭ই ডিসেম্বর তারিখে সংযুক্ত কিষান মোর্চার পরবর্তী সভার তারিখ নির্ধারিত হয়েছে।

সংযুক্ত কিষান মোর্চার আজকের সভা থেকে সিদ্ধান্ত হয়েছে কৃষক আন্দোলনের বকেয়া দাবিগুলি সম্পর্কে ভারত সরকারের তরফে কোনরকম প্রথাসম্মত প্রতিক্রিয়া না মেলা অবধি আন্দোলন জারী থাকবে। গত মাসের ১৯ তারিখে দেশের প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেবার সময়ে নয়া তিন কৃষি আইন প্রত্যাহারের ঘোষণা কররেন, এর পরেই ২১ তারিখে সংযুক্ত কিষান মোর্চার তরফে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে একটি চিথি পাথান হয়। এখনও অবধি ভারত সরকার দেশের কৃষকদের বকেয়া জরুরী দাবিগুলি সম্পর্কে কোনরকম বিধিবদ্ধ প্রতিক্রিয়া জানায় নি, কিছু ক্ষেত্রে বিচ্ছিন্ন কায়দায় কতিপয় প্রতিশ্রুতির কথা শোনা গেছে মাত্র। সরকারের তরফে জানানো মৌখিক আশ্বাসের ক্ষেত্রে এবং সেই আশ্বাসের ভরসায় নিজেদের আন্দোলন থেকে পেছিয়ে আসার ক্ষেত্রে দেশের কৃষক ইউনিয়নগুলির পূর্ব অভিজ্ঞতা খুবই তিক্ত, এর আগে এধরণের মৌখিক আশ্বাসের ন্যুনতম মর্যাদাও রক্ষিত হয় নি। তাই যথাযথ প্রত্যুত্তর না মেলা অবধি আমরা নিজেদের অবস্থান বদলাচ্ছি না – আজকের সভায় কৃষকরা এই কথাই জানিয়েছেন। “আন্দোলনরত কৃষক এবং এই লড়াইতে সমর্থন দিয়েছেন এমন সবার বিরুদ্ধে সরকার যেসব মামলা করেছে সেগুলি প্রথাসম্মতরূপে প্রত্যাহার করতে হবে” – কৃষক নেতারা এই বিষয়ে ঐক্যমত।    

আজকের বৈঠকে থেকে অশোক ধাওয়ালে, বলবীর সিং রাজেওয়াল, গুরনাম সিং চারুনি, শিব কুমার কাক্কাজি এবং যুধবীর সিংদের নির্বাচিত করে একটি ৫ সদস্যের কমিটি গঠিত হয়েছে যা আন্দোলনের অমীমাংসিত সমস্যাগুলি সমাধানের জন্য ভারত সরকারের সাথে আলোচনা করবে৷ এখনো অবধি কৃষকদের ছয়টি দাবি  আদায় বকেয়া রয়েছে – সমস্ত কৃষকদের জন্য কৃষিজাত পণ্য বিক্রিতে এম এস পি (ন্যুনতম সহায়ক মূল্য)-র আইনি অধিকার; বিদ্যুৎ সংশোধনী আইন ২০২০/২১ প্রত্যাহার; দিল্লি এয়ার কোয়ালিটি রেগুলেশনের জন্য কমিশন গঠনের সাথে সম্পর্কিত আইনের ১৫ নং ধারা প্রত্যাহার, এবং বর্তমান সংগ্রামের অংশ হিসাবে উদ্ভুত ৩টি সমস্যা – দিল্লি সহ বিভিন্ন রাজ্যে (হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, উত্তরাখণ্ড, হিমাচল প্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, চণ্ডীগড়, মহারাষ্ট্র, রাজস্থান ইত্যাদি) বিক্ষোভকারী কৃষক এবং তাদের সমর্থকদের উপর দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার; আন্দোলনে শহীদদের (এখনও অবধি প্রায় ৭০৮ জন) আত্মীয়বর্গের পুনর্বাসন, শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে একটি স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য জমি বরাদ্দ; এবং, লখিমপুর খেরিতে কৃষক গণহত্যার বিচারের জন্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অজয় ​​মিশ্র টেনিকে গ্রেপ্তার ও বরখাস্ত করা। সংশ্লিষ্ট কিছু দাবী আদায়ের বিষয়ে কয়েকটি রাজ্য সরকারের সাথে কাজ করতে হতে পারে, তাই আজকের সভায় গঠিত ৫ সদস্যের কমিটি রাজ্যস্তরে সংগঠনের কর্মসূচির বিষয়েও সিদ্ধান্ত নেবে।

সংযুক্ত কিষান মোর্চার পরবর্তী বৈঠক ৭ই ডিসেম্বর স্থির করা হয়েছে। সংযুক্ত কিষান মোর্চার দাবিসমুহের প্রতি ভারত সরকারের প্রতিক্রিয়া জানতে এবং এই আন্দোলনকে একটি যৌক্তিক পরিণতিতে সমাধান করার জন্য ৫ সদস্যের কমিটি আগামী দুই দিন সক্রিয় থাকবে।

সংযুক্ত কিষান মোর্চার পক্ষে

বলবীর সিংহ রাজেওয়াল, ডঃ দর্শন পাল, গুরনাম সিং চারুনি, হান্নান মোল্লা, জগজিৎ সিংহ দাল্লেওয়াল, যোগীন্দর সিংহ উগ্রহন, শিব কুমার কাক্কাজি, যূধবীর সিংহ এবং যোগেন্দ্র যাদব

Spread the word

Leave a Reply