Capitalism is the crisis

মার্কসীয় প্রজ্ঞা আজকের মতো প্রাসঙ্গিক কখনো ছিল না

আমাদের জীবদ্দশাতেই পুঁজিবাদের ধ্বংস প্রত্যক্ষ করা সম্ভব হবে – এখনই হয়ত একথা বলার সময় আসেনি কিন্তু নয়া উদারবাদের ভিতরে এমন পাঁচটি সাধারন বৈশিষ্ট দেখা যাচ্ছে যা পৃথিবীজূড়েই জনগনের দুর্দশার মূল কারন। ক্রমান্বয়ী আর্থিক অবনমন, বাজারের উপরে কতিপয় ব্যবসায়ী গোষ্ঠীর একচেটিয়া রাজত্ব, জনজীবনে প্রয়োজনীয় পণ্য ব্যবহারে গুরুতর অভাব, সার্বিক দুর্নীতি এবং দুনিয়াজূড়ে নৈরাজ্যের প্রতিষ্ঠা এগুলিই হল সেই পাঁচ বৈশিষ্ট। লাগামহীন মুনাফা কিংবা বাজারের উপরে মানবিক নিয়ন্ত্রন কায়েম করতে পারে এমন একটিও প্রতিষ্ঠান বাকি নেই যা পুঁজিবাদ ধ্বংস করেনি। আমার বক্তব্য হল এর ফলে আগামিদিনে এমন অনেক ঘটনা ঘটতে চলেছে যা অভূতপূর্ব – ‘জেলখানার নোটবুক’-এ এমন কিছুরই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন আন্তনিও গ্রামশি।”

Pravat on Working Class and Communalism

সাম্প্রদায়িকতা এবং শ্রমিক শ্রেণীর লড়াই

স্বাধীনতাপূর্ব বোম্বেতে শ্রমিকশ্রেণীর লড়াই সংগ্রামের ইতিহাস বলতে গিয়ে কমরেড বি টি রণদিভে যা বলতেন আজ আরও একবার সেই একই প্রেক্ষিত আমাদের সামনে হাজির হয়েছে। আজকের দিনে শ্রমিকশ্রেণীর চেতনায় আর শুধু দুই প্রতিদ্বন্দ্বী ধারণার চক্রাকার লড়াই চলছে না, প্রতিক্রিয়াশীল শক্তি আরও একধাপ এগিয়ে গিয়ে শ্রমিকশ্রেণীর ঐক্য এবং গোটা দেশের সমাজে সর্বাঙ্গীণ সম্প্রীতি ভাঙ্গার কাজে সাম্প্রদায়িক হিংসাকে কাজে লাগাচ্ছে, সেই কাজে নয়া উদারবাদের আঘাতে দুর্বল শ্রমিকসংগঠনের কাঠামো সহায়ক ভূমিকা নিচ্ছে।

Logo oF Communism

কেন্দ্রীয় বাজেট সম্পর্কে পলিট ব্যুরোর বিবৃতি

করোনা সংক্রান্ত খাতে সরকারী খরচ অনেক আগেই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, কেবলমাত্র প্রতিষেধকের জন্য খরচটুকুই সরকারের ব্যায় হিসাবে এখন প্রয়োজন। এখন যে প্রসঙ্গে সরকারের অনেক বেশী পরিমানে ব্যায়বরাদ্দ করা প্রয়োজন তা হল মোটের উপর অর্থনৈতিক সংকট যার প্রধান খাতগুলি হল ধ্বংসপ্রাপ্ত কর্মসংস্থানের চেহারা, জীবন – জীবিকার সুরক্ষা, জনগণের আয় বৃদ্ধি এবং বাজারে চাহিদা হ্রাস পাওয়ার মোকাবিলা করা। যেভাবে সরকার গতবারের ব্যায়বরাদ্দের খরচ বকেয়া রেখেছে, এবং এবারের বাজেটেও ব্যায়বরাদ্দে কাটছাঁট করেছে তাতে বলাই যায় জনগণের উপরে এক বিপর্যয় নেমে আসতে চলেছে। এর ফলে জনগনের দুর্দশা বাড়বে এবং বৈষম্য বাড়িয়ে দেবে যার জন্য ইতিমধ্যেই ভারত সারা পৃথিবীতে সুপরিচিত।