লেনিন: মানবমুক্তির বৈপ্লবিক অগ্রগতির ধ্রুবতারা - সীতারাম ইয়েচুরি

মাত্র ৫৪ বছরের সংক্ষিপ্ত জীবনকাল ছিল ভ্লাদিমির ইলিচ লেনিনের। তার মধ্যেই তিনি বিশ্বব্যাপী প্রলেতারীয় বিপ্লবকে এগিয়ে নিয়ে যেতে স্থায়ী ছাপ

সংগঠন প্রসঙ্গে লেনিনের বৈপ্লবিক তত্ত্ব - প্রকাশ কারাত

মার্কসবাদী ধারণা এবং অনুশীলন এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে লেনিনের অন্যতম অবদান বৈপ্লবিক পার্টির ধারণা গড়ে তোলা। রাশিয়ার বিপ্লবে তাঁর সেই ধারণাই

Dhrubajyoti Cover

লেনিনের ‘জঙ্গী বস্তুবাদ’

আমাদের দেশে ‘হিন্দুত্ববাদ’ তার জন্মলগ্ন থেকে দার্শনিকভাবে এই ‘পবিত্রতার’ ধারণাকে সমাজের মধ্যে লালন করেছে। লেনিন সরোকিনের মত বুদ্ধিজীবিদের আখ্যায়িত করছেন, “আধুনিক শিক্ষিত সামন্তবাদী” হিসেবে। আমরাও খেয়াল করলেই চারপাশে এরকম অসংখ্য আধুনিক শিক্ষিত সামন্তবাদীদের দেখতে পাব। তাই লেনিনের শেষ কথাটা হচ্ছে এরকম , মার্কসবাদের বা জঙ্গী বস্তবাদের পক্ষের লড়াইয়ের অবশ্য কর্তব্য হল “আধুনিক শিক্ষিত সামন্তবাদীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করা”।

Prabhat Patnaik Cover

সাম্রাজ্যবাদ সংক্রান্ত লেনিনের তত্ত্ব,অক্টোবর বিপ্লব, শোষিত রাষ্ট্রগুলির মুক্তি

পুঁজিগুলির মধ্যেকার প্রতিযোগিতা বিশ্বজুড়ে “অর্থনৈতিক অঞ্চল” দখলের জন্য বিভিন্ন উন্নত পুঁজিবাদী দেশের অন্তর্গত বিভিন্ন একচেটিয়া জোটের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতার রূপ নেয়; এবং ইতিমধ্যে তাদের মধ্যে বিভক্ত বিশ্বে, এই ধরনের প্রতিদ্বন্দ্বিতা অগত্যা যুদ্ধের মাধ্যমে এই অঞ্চল পুনর্বিভাজনের প্রচেষ্টার রূপ নেয়। এই যুদ্ধগুলি, যার মধ্যে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ একটি উদাহরণ ছিল, বিভিন্ন দেশের শ্রমিকদের যুদ্ধক্ষেত্রে একে অপরকে হত্যা করতে বাধ্য করেছিল; পুঁজিবাদ উপনিবেশ, আধা-উপনিবেশ এবং নির্ভরশীল দেশগুলির নিপীড়িত জনগণকেও বিভিন্ন অর্থনৈতিক অভিজাততন্ত্রের স্বার্থে কামানের-খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করেছিল।