কমরেড লক্ষ্মী সেহগল - এক বিপ্লবীর স্মৃতিচারণা

কমরেড লক্ষ্মী সেহগল। নেতাজি সুভাষ বসুর সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন - প্রথমে কুইন মেরি'স কলেজে পড়াশোনা এবং ১৯৩৮ সালে মাদ্রাজ মেডিক্যাল কলেজ থেকে চিকিৎসা শাস্ত্রে ডিগ্রি অর্জন করেন। চেন্নাই'র কস্তুরবা গান্ধী সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক হিসাবে কাজ শুরু করেন।

আজাদ হিন্দ ফৌজ - জমানায় ১৯৪৫ সালে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর হাতে গ্রেফতার হন, পরে তাকে ভারতে পাঠানো হয়।

১৯৭১ সালে লক্ষ্মী সেহগল ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্কসবাদী)'র সদস্যপদ অর্জন করেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার যুদ্ধে তিনি রিলিফ ক্যাম্পের কাজের সাথে যুক্ত ছিলেন। ভূপাল গ্যাস দুর্ঘটনার সময় সেখানে রিলিফ ক্যাম্পের আয়োজন করেন, ১৯৮৪ সালে শিখ বিরোধী দাঙ্গায় শান্তি প্রতিষ্ঠার কাজে নিয়োজিত হন। কানপুরে নিজের ক্লিনিকে মানুষের চিকিৎসার কাজে যুক্ত ছিলেন ২০০২ সাল অবধি, তখন তার বয়স ৯২ বছর।

লক্ষ্মী সেহগল সারা ভারত গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি'র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। রাজ্যসভায় সাংসদ হিসাবে সিপিআই(এম)'র হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ১৯৪৭ সালে প্রেম কুমার সেহগলের সাথে তার বিবাহ হয়, তাদের দুই সন্তান - সুভাষিণী আলি এবং অনিশা পুরি।

২০১২ সালের ২৩ জুলাই ৯৭ বছর বয়সে তার মৃত্যু হয়।


শেয়ার করুন

উত্তর দিন